খালেদা জিয়াকে রোজ ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত রোদে বসিয়ে আন্দোলনের মাঠ গরম করার পরামর্শ: জাফরুল্লাহ

138
0

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে রোজ ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এক বেলা রোদে বসিয়ে রাখতে । তিনি মনে করেন, এতে বিএনপিকর্মীরা বুঝতে পারবেন যে তাদের নেত্রীকে আটকে রেখে মূলত আন্দোলনকেই আটকে রাখা হয়েছে। আজ শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। 

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘যদি বিএনপি সত্যি চায় হাসিনার ক্ষমতার পট পরিবর্তন হোক, তাহলে বিএনপির দায়িত্ব অনেক বেশি এখানে। তারেকের স্তুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসতে পারবেন না কোনো দিন। আপনারা যদি সত্যিকার অর্থে ক্ষমতায় আসতে চান, জনগণের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠিত করতে চান, মাঠে বসতে হলে খোকনের মতো যারা আছেন, তারা আমার মতে জায়মাকে সঙ্গে নিয়ে নামতে পারেন। তারেককে নিয়ে নয়। আমি তারেককে কোনো দোষ দিচ্ছি না। স্ট্রাটেজি বলে একটা কথা আছে, আমরা বললেই তার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার হবে না এবং বাংলাদেশের মাটিতে ফিরতে পারবে না, একমাত্র গণতন্ত্রের বিজয় হলেই তারেক দেশে ফিরতে পারবে।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির উচিত হবে খালেদা জিয়াকে প্রতিদিন ঘরের মধ্যে আবদ্ধ না রেখে, প্রতিদিন ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত রোদের মধ্যে বসাতে হবে। যাতে জনগণ দেখতে পায় তাদের নেত্রীকে অন্যায়ভাবে আটকে আন্দোলনকে আটকে রাখা হয়েছে। সেখানে যদি জায়মা আসে তাহলে তাকে নিয়ে সারাদেশ ঘুরে বেড়াবে। তখনই দেখবেন জোয়ার কীভাবে ওঠে, তখনই শেখ হাসিনা টের পাবেন তার যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বী এসেছে। ’

তিনি বলেন, ‘এখন সরকার জনগণের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এই ষড়যন্ত্র কারা করেছে? এই সরকারই তো করেছে। এই ষড়যন্ত্রের মূল ভিত্তি দুর্নীতি। ৭ হাজার কোটি টাকা দিয়ে যে পদ্মা ব্রিজ হতো সেটা ৫০ হাজার কোটিতে পৌঁছেছে। এই টাকা কোথায় যাবে, এর হাজারটা প্রমাণ আছে।’

ভাস্কর্য বিতর্ক প্রসঙ্গে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আজকে আলেমদের দিয়ে যে বিতর্ক আনা হয়েছে তার জন্য আওয়ামীলীগ দায়ী। এয়ারপোর্টের সামনে লালনের ভাস্কর্য ছিল সেটা নিয়ে হুমকি-ধামকি শুনে সরকার চুপচাপ বসে ছিল। এদেরকে দিয়ে আবার বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখছেন, ফলে গায়ে লাগছে। গায়ে লাগতে লাগতে ফলে তারা আজকে শেখ মুজিবের ভাস্কর্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।’

তিনি বলেন, ‘আমার একটা বক্তব্য নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। আমি সে সম্পর্কে বলতে চাই- আলেমরা শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি, আপনাদের অযথা বিতর্কে জড়িয়ে পড়া ঠিক না। আজকে ভাস্কর্য বিতর্কে যাওয়া ইসলামের জন্য ক্ষতিকর। ভাস্কর্য বিতর্কে না জড়িয়ে জনগণের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে আসেন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here